বিধির নিধান

ঝড় তুফানের সাথেআমার সমপরক বেশযখন চাই ভালবাসতেখোড়া করে দিল শেষমেষ।ঝপাং করে আসাকত কাজের ফাকে ফাকেযেন এল বৃষ্টি এক পশলাঅনেক দিনের পরে।কিছু ভাবি যদি, হয় অন্য কিছুপেলাম যদি কখনো খুশীফিরে এল যে তুফান পিছুপিছুযেটুকু ছিল,উড়ে গেল তখুনি।ইছছে করে বসবে পাশে,গুনগুনিয়ে গাইবে গানকিছু অনুরাগের মাঝেরইবে টুকরো মান অভিমানআমি তো সেই একই আছিনা হয় সবাই গেছে চলেমুহুরতের শ্পর্শ… Continue reading বিধির নিধান

চন্দ্রমা

ইশান কোণে উঠেছিল চাঁদ যখন,গোধুলীর ধুলি ছিল আকাশে,কালো ঘোমটাব ফাকে উকি দিয়ে  তখন,বলে “যুগে যুগে আসব ফিরে কাছে”।আমি যে একই,নীল রুপালী,কখনো বা আজকের মত কমলা,জোতস্না কিন্তু সদা শুভ্র নিলাদ্রি,ঢেলে বেড়াই সদা ভালবাসার লালিমা।

সেই জন

তবু সবাই আছে তো ভাল,তাই স্বস্তি,অন্য কটা দিনের মত নয়,আজ যে সবাই ঘরে রয়,ঠাট্টাতামাসা খেলাধুলা,গল্পগুজব খেয়ালীপনা,নিজের মত সময় নেই,কিন্তু সবাই ভাল তাই ই সই। ওই যে সেই জন দূরে যে আছে,খবর হল না নেওয়া,নিসচই সে ও ভাল আছে,কি জানি কি করছে এখন,হয়ত জানালায় দাঁড়িয়েশুনছে ভেসে আসা ভ্রমরেরকরুন গুঞ্জন।[অপেক্ষা সেই তখন থেকেকখন আসবে কফোন,তুলি আমি দুবার… Continue reading সেই জন

শত নাম

ক্ষতি কি, না হয় হলেই বা মৃণালিনী,যখন তুমি থাকো একা আনমনে,ঠিক সেই বজরায় দাঁড়ানো দেবী চৌধুরানী। ফুল বাগিচায় হাস্নুহানা,বিদ্যাধরী পদ্মাবতী,যখন তুমি আকায় মগ্নঠিক যেন স্বরস্বতী। হলেই বা মা যশোদা,মমতা ভরা আচল খানি,সদা সর্বদা আশীষ ভরা,আমার তুমি ভুবনমোহিনী। জানি তুমি লক্ষী হয়েবিরাজ তোমার আপন ঘরে,মনের মাঝে আমি তোমায়রাধার মত রেখেছি সেজে।

মা

কেমন জানি মনে হল,তুমি মোড়ায় বসে,উঁচুতলা ব্যাল্কনিতে দুপুরবেলা পিঠ ঠেকান,কালো ঘন চুলে মেঘলা করা কাধে ঝুলে,সোনালি চশমা চোখে, কিছু পড়ছ যেন। দেখি এক চঞ্চল শিশু,খেলে তোমার পিছুকবরী ধরে,উতফুল্ল প্রান,নিঃসংশয়ে দিল টান। তুমি ফিরে তাকিয়ে, দিলে এক বকুনি,উত্তর পেয়ে শিশুমন চঞ্চল আরো তখুনি,লতাপাতা ভেবে দিল সে কামড় বেণীতে,তর্জনী তুলে গম্ভীর স্বরে শ্পর্শিলে তারে। খেলা বন্ধ রেখে… Continue reading মা

শুষ্কতা

সকল ধারাযখন শুকায়ে যায়পৃথার মাটিযখন কাদে নিরালায়,উদয় তখনদূর দিগন্তেএকটুকরা আশার আভা,রক্তিম সুরজ্যের শোভাআগামীকালের নুতনেরবারতা জানায়, কয়েক ফোটা বৃষ্টি বরষনেরঅপেক্ষায়।

তখন

তুমি বলতে, কত কাজ, এক হাত, সামলাই একেলা, কোথা থেকে পিছলে যায় সকাল রই,ঘুমোই, আসে বিকেলবেলা। বই পড়ো, চোখে চশমা, উপুর হয়ে শুয়ে বিছানা পড়ছ একমনে ঠোটদুটি চাপা, সুখদুঃখের কাহিনী এক রাজকন্যা। ঘুরে বেরাও আপনমনে দেখতে পার না তো আমায় আমি যে থাকি আকাশে বাতাসে কখনো মনের কল্পনায়। আমি যে রই সবসময়, আকাশে বাতাসে তোমার… Continue reading তখন

দুপুরে

উদাসী হাওয়া জিজ্ঞাসা করি তোরে,কোথায় গেল সে,প্রস্ন করি আকবাকা পথ ফিরে,পথ দেখিয়ে আনবি তো রে? গাছ থেকে পিছলে পরে একটা একটা করে শুকনো পাতা,দেখেছি সারা দুপুর ধরে,জানালার সামনে ঠায় বসে বাধা। দুটি জীবন দুটি বৃন্তে ফোটা,খেয়লী বাতাসে দুলতে থাকে,একজন আপন মনে করে খেলা,চোখের মণি হয়ে  অন্যজনের, সারা বেলা।