সুধাকলস

বসে ছিলাম বুতিনের পাশে,
না উঠে যায় চমকে পাছে,
এলোমেলো চিন্তা আসে মাথায়,
নানানরকম সুর তাল পাকায়,
সবাইয়ের ভিতর আছে এক কলসি,
জল ভরা নয়, ভরে যায় আপনি আপনি,
ছোটো থেকে তুমি যা পাও যত স্নেহ মমতা,
মাটির কলসে জমা থাকে সেই সব ভালবাসা,
ধীরে ধীরে তুমি বড় হলে, নানা রংগে রং লাগালে,
কলস কিন্তু থাকে সেই এক,
মা বাবা ভাই বোনের ভালবাসার ব্যাগ,
তুমি হয়ত ঘর বসালে,
সুন্দর সাজে বাইরের ঘর সাজালে,
মনের ভিতরের কলসের সুধারস,
সে যে সাজায় তোমার অন্তরের যশ,
তাই তে প্রকাশ তোমার ভিতর বাহির,
যে তোমায় করেছেন এই অমূল্য দান,
তাদের মনে মনে করে দিও প্রণাম,
তুমি সুন্দর,তুমি যে আলোর ঝর্ণা,
তাই তো তোমায় নিয়ে এই কল্পনা।

দিনশেষে

সারাদিন পরে এই আমার সময়টা
যখন দিনশেষের বাজে ঘড়ির ঘন্টা,
ক্লান্ত দেহর উপর এলিয়ে পরে তার ছায়া,
আকাশ পরদায় জ্বলে হাজার দিয়া,
সময়টা বড়ই মধুর আমার কাছে,
কয়েক মুহূর্ত শুধু তুমি থাক পাশে,
জানিয়ে যাও আবার সকাল হবে,
দিনের চেয়ে রাত সুখের রবে,
তোমার মুখ চেয়ে তাই শুতে চলি
যদি তুমি আস ফিরে হয়ে সপনের পরী,
ঘুম পাড়িয়ে নিঃশব্দে সরে চল যাও কখন,
“ভালবাসি বলে” কপালে মিঠি একে দাও যখন।