ভোরের কিরন

ভোরের রবি প্রকাশে যখন কিরন,
আমার অপেক্ষা চিলেকোঠার ঘরে,
আসবে কখন এক মুঠি সমীরন,
নিয়ে সাথে একটুকরো রোদের চিলতে।

একথা ওকথা কত কথা শুনি আবার,
যেন দুনিয়া শেষ হয়ে যাবে একটু পরে,
কখনো শুনিনা তো একই কথা বারবার,
সময়ের ঘড়ি ঘুরপাক খায় আনমনে।

মিছে সবাই বেড়ায় খুজে,
মন্দির মসজিদে তার প্রমাণ,
আমার ইশ্বর তখন প্রকাশে,
যতক্ষণ  করি তোমার ধ্যান।

Advertisements

আশা

এই বিশাল দুনিয়াতে,
আমরা সবাই
কোন না কোন আশার পিছনে
শুধু ছুটে বেড়াই,
আশার আলো যতক্ষন
ধীমি জ্বলতে থাকে,
জীবনেরেলের চাকা তেমন
চরকির মত ঘুরতে থাকে,
কখনো আশা যায় মুছে,
প্রকাশে নিরাশা,
নিরাশার ছাই ধুয়ে দেয়,
একটুকু ভালবাসা,
জন্ম নেয় আবার করে
এক নুতন আশা,
জীবনে প্রতিদিন সকালে
তাই দেখা দেয় আশা,
মধ্যাহ্নে তীব্র আলোয় আশা হয় দুরাশা,
রাতের অন্ধকারে পরিনত হয়,
কালো নিরাশায়,
আশা দুরাশার আর নিরাশায়,
চলতে থাকে কাহিনী ভালবাসা।

তোমরা ব্যাস্ত দুইবেলা,
দিনে কাজ,রাতে ঘুমিয়ে,
আমার শুধু একবেলা,
দিন খানি,তুমি থাক যে।
চঞ্চল মন,শুনতে ইচ্ছে
কিচিরমিচির পাখীর ডাক,,
সারা দিন, জানালা খুলে,
যদি কখনো আসে এক বার।

ব্যাথা

অনেক ব্যাথা পেতে হয় ভালবাসলে,
হয়ত একসময় ভিতরের গোঙানী,
শুকনো চোখের জল হয়ে যায় বেরিয়ে,
অভ্যেস হয়ে গেছে বারবার না পাওয়ার
তাই আর সে যন্ত্রণা হয়ে করে না আঘাত,
এই টুকু সময় পৃথিবীতে,
জীবনের সন্ধ্যাকালে যদিবা জ্বালাই দীয়া,
দুই হাত ঘিরে ধরে রাখি তার আলো,
ঝড়ঝাপটায় ভয় নিভে যাওয়ার,
আপ্রাণ চেষ্টা জ্বালিয়ে রাখার,
আমার ব্যাথার সাথে তার মিতালী
আগুনের শিখার সাথে তাই আমিও জ্বলি।

mother in me

I never believed the women in me,
the first joy of missing the month,
the first visit to the clinic,
the first doppler scan,and the shadow,
the resemblance to a new beginning,
and the assurance for the long wait,
I fell instantly in love with in,
the thing I have never met,
the flower blossoming,
changing slowly me into mother,
forever.

কফি টেবিলে

এখনো তো গরম পরেনি তেমন,
তবুও মাঠেঘাটে এক অদ্ভুত শুষ্কতা,
বুলবুলির ডাক শুনিনা বাগানে এখন,
না শুনি কফি টেবিলে গরম বক্তৃতা।

ব্যাস্ত সবাই, সন্সারের রেলগাড়িতে
আমার ইস্টিশন যে বহু দূরে,
মালগাড়ী ছাড়া কিছু আসে না পাশে,
তাই শুধু গুনি বারান্দায় বসে।

মন যে আজ উড়ে যেতে  চায়,
সাত সুরের মিঠাস শুনতে চায়,
রাম ধনুর রংবেরঙ কন্ঠে ভেজাতে চায়,
কিছু সময় আবোলতাবোল শুনতে চায়

ফেলে আসা দিন

খুব ইচ্ছে করে চলে যেতে সেই দিনে,
সেই কলেজে মোহনদার ক্যান্টিনে আড্ডা,
লুকিয়ে ফোন করব তোমাকে,
আসতে পারবে কি বিকেলে লেকের ধারটা?

কাজকর্ম কিছু নেই,না ছিল কোন ভবিষ্যৎ,
তবু সেই দিন এককথায় বলেছিলে ‘আসবে’,
কমলা রংগের শারীটা মানিয়েছিল অপুরব,
গোধুলির সাথে মিশে গিয়েছিল যে আচলটা।

এখন তোমার কানের পাশে চুলটা,
একটু হয়েছে সাদা,
আমার কপালে পড়েছে ভাজ বেশ কয়েকটা,
তবে মনটা,আছে সেই রকম সাদামাটা।

তাই এখন তো পারিনা বলতে,
যাবে কি?
একটু না হয়ে বারান্দায়,
কিছুক্ষন বসবে,
ভাবব পিছন ফেলে আসা দিন গুলি।

কলস

আমি যেন এক গায়ের হাটে
এক কানা ভাঙা কলসি কাখে,
পড়ে আছে নতুন  কলসের মাঝে,
নেই কোন জায়গা এই সংসারে।
যদি কেউ তুলে নেয় ভুল করে,
খুশী তার ভরে রাখব আমার গভীরে
রবে শীতল মেটাবে তিয়াস সবসময়,
কান্না তার ধরে রাখব আমার ভেজা গায়।
আমি যে কানা ভাংগা,
তাই কম সেই আশা,
পড়ে রইব ধুলার পড়ে,
অনন্তকাল সময় জুড়ে।